Monday, August 8, 2022
Homeজাতীয়রাজনীতিযুবলীগ নেতা হত‍্যায় বিএনপির ১১ নেতাকর্মীর যাবজ্জীবন

যুবলীগ নেতা হত‍্যায় বিএনপির ১১ নেতাকর্মীর যাবজ্জীবন

ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রিয়াজ উদ্দিন দুলাল (৪০) হত্যা মামলায় বিএনপির ১১ নেতাকর্মীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সেই সঙ্গে তাদের ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও ছয় মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) দুপুরে ময়মনসিংহের দ্বিতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক সাবরিনা আলী এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- তারাকান্দা উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের তারাটি গ্রামের নাজিরুল হক তালুকদার, হুমায়ুন, শান্ত, বিল্লাল, মোফাজ্জল, শাহিন, সেলিম, আবুল কাশেম, আনোয়ার, শাহীন ও কামাল।

তাদের মধ‍্যে নাজিরুল হক তালুকদার ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক। দণ্ডপ্রাপ্ত অন‍্য আসামিদের সবাই বিএনপি-যুবদল ও এর অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী।

খবরের সত‍্যতা নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি (পিপি) অ‍্যাডভোকেট সঞ্জীব কুমার সরকার।

তিনি বলেন, মামলায় ১৩ আসামির মধ‍্যে খোরশেদ ও এরশাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় তাদের খালাস দিয়েছেন আদালত।

রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, ২০১১ সালে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন যুবলীগ নেতা দুলাল এবং বিএনপি নেতা নাজিরুল হক তালুকদার। ওই নির্বাচনে দু’জনই পরাজিত হলে ২০১১ সালের ১৬ জুন যুবলীগ নেতা দুলালকে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘটনার পাঁচদিন পর মারা যান দুলাল।

এ ঘটনার পরদিন নিহতের ছোট ভাই ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সেই সময়ের সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন বাদী হয়ে নাজিরুল হক তালুকদারকে প্রধান আসামি করে ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ মামলার তদন্ত শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ।

এদিকে মামলার রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন
মামলার বাদী মোফাজ্জল হোসেন।

তিনি বলেন, এ রায়ে ন‍্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। আমি রায়ে সন্তুষ্ট।

তবে রায়ে ন‍্যায় বিচার বঞ্চিত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের স্বজনরা।

তারা বলেন, আমরা এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাব।

ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রিয়াজ উদ্দিন দুলাল (৪০) হত্যা মামলায় বিএনপির ১১ নেতাকর্মীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সেই সঙ্গে তাদের ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও ছয় মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) দুপুরে ময়মনসিংহের দ্বিতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক সাবরিনা আলী এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- তারাকান্দা উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের তারাটি গ্রামের নাজিরুল হক তালুকদার, হুমায়ুন, শান্ত, বিল্লাল, মোফাজ্জল, শাহিন, সেলিম, আবুল কাশেম, আনোয়ার, শাহীন ও কামাল।

তাদের মধ‍্যে নাজিরুল হক তালুকদার ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক। দণ্ডপ্রাপ্ত অন‍্য আসামিদের সবাই বিএনপি-যুবদল ও এর অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী।

খবরের সত‍্যতা নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি (পিপি) অ‍্যাডভোকেট সঞ্জীব কুমার সরকার।

তিনি বলেন, মামলায় ১৩ আসামির মধ‍্যে খোরশেদ ও এরশাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় তাদের খালাস দিয়েছেন আদালত।

রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, ২০১১ সালে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন যুবলীগ নেতা দুলাল এবং বিএনপি নেতা নাজিরুল হক তালুকদার। ওই নির্বাচনে দু’জনই পরাজিত হলে ২০১১ সালের ১৬ জুন যুবলীগ নেতা দুলালকে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘটনার পাঁচদিন পর মারা যান দুলাল।

এ ঘটনার পরদিন নিহতের ছোট ভাই ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সেই সময়ের সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন বাদী হয়ে নাজিরুল হক তালুকদারকে প্রধান আসামি করে ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ মামলার তদন্ত শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ।

এদিকে মামলার রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন
মামলার বাদী মোফাজ্জল হোসেন।

তিনি বলেন, এ রায়ে ন‍্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। আমি রায়ে সন্তুষ্ট।

তবে রায়ে ন‍্যায় বিচার বঞ্চিত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের স্বজনরা।

তারা বলেন, আমরা এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাব।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments